হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে জানুন

 

প্রিয় পাঠক,আপনারা হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন। হার্টের সমস্যা হওয়া মারাত্মক একটা রোগ। আজকে আমরা হার্ট ব্লক কেন হয়,হার্টের সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা এবং হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করবো। তাই হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ে ফেলুন।
হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে জানুন

হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুর ঝুঁকি থাকে। তাই সবারই উচিত এই সম্পর্কে ধারণা থাকা। তাই ধারণা পেতে হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকারে আর্টিকেলটি বিস্তারিত পড়ুন।

ভূমিকা 

হার্ট অ্যাটাক বর্তমানে কম বয়সী মানুষদের মাঝেও দ্রুত বাড়ছে। বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বের হৃদরোগ আক্রান্ত সংখ্যা বাড়ছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন,সঠিক সময়ে যদি এই রোগ শনাক্ত করা যায় তাহলে হৃদরোগ ভালো করা সম্ভব। তাছাড়া পরিস্থিতি খুব গুরুতর হতে পারে। চিকিৎসকেরা বলছেন,হার্ট অ্যাটাকের প্রধান কারণ হলো ব্লকেজ।

এই ব্লকেজটি যত তাড়াতাড়ি সনাক্ত করা যায় তাহলে বড় ধরনের বিপদ এড়ানো সম্ভব। তাই আমাদের প্রত্যেককে হার্ট অ্যাটাক সম্পর্কে ধারণা থাকা দরকার। তাই হার্ট এটাক সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আমাদের হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার এই আর্টিকেলটি বিস্তারিত মনোযোগ সহ কারে পড়ুন।

হার্ট ব্লক কেন হয়

এই বিশ্বে প্রতিবছর ৩৮ লাখ পুরুষ এবং ৩৪ লাখ মহিলা এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় এবং প্রতি ৪ জনের একজনের মৃত্যুর কারণ হচ্ছে ইসকেমিক হার্ড ডিজিজ। করোনারি আর্টারি ডিজিজ বা ইসকেমিক ডিজিজ যা হার্ট ব্লকের অন্যতম প্রধান কারণ। এছারাও ব্লক হওয়ার কারণ হলো কোলেস্টেরল।
যা আমাদের শরীরে খাবারের সঙ্গে প্রবেশ করে এবং তা রক্তের মাধ্যমে প্রবাহিত হয়ে ধমনীর ভেতরের গায়ে জমা হয়ে ব্লকের সৃষ্টি করে।ডায়াবেটিস,উচ্চ রক্তচাপ, এবং ধূমপানও বড় কারণগুলো হতে পারে।

 মেয়েদের হার্টের সমস্যার লক্ষণ

নারীদের হৃদরোগ নীরব ঘাতকের মত কাজ করে । বিশেষজ্ঞদের মতে, নারীদের হৃদরোগ ধরা পড়ার সম্ভাবনা অনেক কম থাকে ।তাই প্রথম থেকেই লক্ষণগুলো খেয়াল রেখে চিকিৎসা করা হলে মৃত্যু ঝুঁকি কমানো সম্ভব । এবার চলুন মেয়েদের হার্টের সমস্যার লক্ষণ গুলো কি কি তা জেনে নেই।
  • বুক ব্যথা
  • গলাও মুখের হাড় ব্যথা
  • কাধ বা পিঠের উপরের অংশ ব্যথা
  • পেটে অসুস্থ অনুভব করা
  • শ্বাস প্রশ্বাস দ্রুত বেড়ে যাওয়া
  • হঠাৎ ঘাম ঝরা
  • উদ্বেগ ও মানসিক চাপ
  • মাথা ঘুরে পড়ে যাওয়া

হার্টের ব্যথা কোথায় হয়

বুকের যন্ত্রণায় কি হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ - কোথায় ব্যথা হলে বুঝবো যে এটাই হৃদরোগের লক্ষণ। তাছাড়া আর কোথায় কোথায় ব্যাথা হলে বুঝবো যে এটাই হার্টের ব্যথা। তাই সবারই উচিত হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ গুলো জেনে রাখা। চলুন এবার জেনে নেই হার্টের ব্যাথা কোথায় হয়।
  • হার্টের ব্যথা সাধারণত বুকের মাঝখানে হয়ে থাকে।
  • বুকের বাপাশে তীব্র ব্যথা অনুভূত হয়।
  • বুক ভারি বুকে চাপ লক্ষ্য করা যায়।
  • মনে হবে শ্বাস আটকে যাচ্ছে।
  • বা হাত দিয়ে ব্যথাটা আস্তে আস্তে নামতে শুরু করে।

হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে জানুন

হার্ট অ্যাটাক মারাত্মক একটি রোগ। হার্ট অ্যাটাকে যারা মৃত্যুবরণ করে তাদের বেশিরভাগ মানুষই প্রথম ঘন্টার মধ্যেই মারা যায়। হার্টের রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়া বা কমে যাওয়া এই রোগটিকে ইসকেমিক হার্ট ডিজিজ বলে।তাই সকলেরই হার্ট অ্যাটাক সম্পর্কে কমবেশি ধারণা থাকা প্রয়োজন। 

কারণ হার্ট অ্যাটাকের উপস্বর্গগুলো রোগী এবং রোগীর আশেপাশের মানুষজন আগেই বুঝতে পারলে চিকিৎসার জন্য পূর্ব প্রস্তুতি নিতে পারবে। তো এবার চলুন হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার আর্টিকেলের মাধ্যমে বিস্তারিত জেনে নেই,

   হার্টের লক্ষণঃ

  • অতিরিক্ত ঘাম ঝরা (পূর্ব লক্ষণ)
  • বুকে ব্যথা অনুভব করা
  • দম ফুরিয়ে যাওয়া বা শ্বাসকষ্ট
  • মুখ দিয়ে নিঃশ্বাস নেওয়া
  • ঘাড় ব্যথা ও হাতে ব্যথা
  • গলা ও পিঠে ব্যথা
  • মাথা ঘুরানো মাথা ব্যথা
  • বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া
  • হঠাৎওজন বৃদ্ধি পাওয়া

  হার্টের প্রতিকার ঃ

  • নিয়ম তান্ত্রিক জীবনযাপন করতে হবে
  • উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রাখতে হবে
  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ রাখতে হবে
  • ধূমপান ত্যাগ করতে হবে
  • চর্বিযুক্ত খাবার পরিহার করতে হবে
  • নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে
  • শারীরিক পরিশ্রম করতে হবে
  • দুঃচিন্তা মুক্ত থাকতে হবে
  • প্রচুর পরিমাণ শাকসবজি খেতে হবে

হার্টের সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা

পরিবার বা কাছের মানুষের হঠাৎ হার্ট অ্যাটাক হলে ওই সময় কি করবে বুঝে উঠতে পারে না। অথচ ওই সময় মাথা স্থির রাখতে হবে। মাথা স্থির রেখে রোগীকে যত তাড়াতাড়ি সাপোর্ট দেওয়া যায় তাতেই রোগীর জন্য মঙ্গল কর। ওই সময় ঘাবড়ে গিয়ে দেরি করে ফেললে রোগীর জন্য বিপদ হতে পারে। তো এখন জেনে নিন জরুরী সময় কি কি করা উচিত।
১.প্রথমেই স্থানীয় হাসপাতালে যোগাযোগ করবেন। যথাসম্ভব হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবেন।হাসপাতালে যোগাযোগ করার পর একটি অ্যাসপিরিন জাতীয় ওষুধ খেয়ে দিবেন।এই অ্যাসপিরিন রক্ত জমাট বাড়তে সাহায্য করে। এতে হার্টের ক্ষতি অনেকটা কমে আসে। যদি রোগীর এলার্জির সমস্যা থেকে থাকে তাহলে অ্যাসপিরিন খাওয়াবেন না।
২.তারপর রোগীকে স্বাভাবিক অবস্থায় রাখার চেষ্টা করুন। দেওয়ালে হেলান দিয়ে মাটিতে বসান এতে রক্তচাপ কমে আসবে।

৩.শ্বাস প্রশ্বাস চেক করুন বা রোগী কেমন সাড়া দিচ্ছে বার বার খেয়াল করুন। রোগী অজ্ঞান হয়ে গেলে সিপিয়ার দেওয়া শুরু করবেন।

৪.বুকের মাঝখানে জুড়ে ধাক্কা দিন। এই ধাক্কা যেন মিনিটে প্রায় ১০০ থেকে ১২০ কম্প্রেশন হয়ে থাকে। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া অবস্থায় এই কাজগুলো অব্যাহত রাখুন।

উপরের এই কয়েকটি উপায় অনুসরণ করলে হার্ট অ্যাটাক থেকে আপনি এবং আপনার আপনজনার জীবন বাঁচতে পারে। 

উপসংহার

প্রিয় পাঠক,আশা করছি আপনারা হার্টের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার আর্টিকেলটি খুব মনোযোগ সহকারে পড়েছেন। এবং হাটের সমস্যার লক্ষণ ও প্রতিকার আর্টিকেলের মাধ্যমে হার্ট ব্লক কেন হয়,মেয়েদের হার্টের সমস্যার লক্ষণ কি কি ও তার প্রতিকার সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। এছাড়াও হার্টের ব্যথা কোথায় হয় এবং হার্টের সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন।

এবং হার্ট অ্যাটাক হলে উপস্থিত ধৈর্য ধরে সচেতনতার সাথে কিভাবে প্রাথমিক কাজগুলো করবেন তা সম্পর্কে সঠিক ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আশা করছি,আর্টিকেলটি বিস্তারিত পড়ার মাধ্যমে হার্টের সমস্যা ও লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে সঠিক তথ্য পেয়েছেন। যার মাধ্যমে আপনাদের স্বাভাবিক জীবন যাপনে উপকৃত হবেন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

ড্রিমসসেফ আইটিির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url